ফেসবুক থেকে টাকা আয় করার ১০ টি উপায়

  Generate and Copy Share Link for Earning

ফেসবুক থেকে টাকা ইনকাম বা আয় করার উপায়

ফেসবুক থেকে আয়ের নিয়ম – ঘরে বোসে অনলাইনে আয় করার এমনিতে অনেক ভালো ভালো পদ্ধতি আমাদের কাছে রয়েছে।তাদের মধ্যে, ব্লগ থেকে আয় করা এবং ইউটিউবের থেকে অনলাইন ইনকাম করা সব থেকে লাভ জনক এবং দ্রুত সফলতা পাওয়ার মাধ্যম বলে আমি আগেই বলেছি। কিন্তু, আপনারা খুশি হবেন এইটা জেনে যে, “আপনি একটি ফেসবুক একাউন্ট খুলেও অনলাইন আয় করতে পারবেন”। মানে, ফেসবুকের মাধ্যমে টাকা আয় করাটাও এখন সম্ভব। এবং, তাই “ফেসবুকে কিভাবে টাকা আয় করা যায়“, এবেপারে আমি আপনাদের ৭ টি ইনকামের মাধ্যম বা নিয়ম বলবো। (How to make money from Facebook ?)

ফেসবুক প্রোফাইল থেকে টাকা আয় 

 

বর্তমানে ফেসবুক প্রোফাইল থেকে টাকা আয় করা যাবে। পূর্বে আমরা যেমনি ফেসবুক পেজ কিংবা ফেসবুক গ্রুপ থেকে টাকা আয় করতে পারতাম। ঠিক একইভাবে ফেসবুকের নতুন আপডেট এর মাধ্যমে ফেসবুক প্রোফাইল থেকে টাকা আয় করা যাবে।

 

এতদিন আমরা অনেকের নিকটই জিঙ্গেস করতাম যে, কিভাবে ফেসবুক প্রোফাইল থেকে টাকা করা যায়? যদিও পূর্বে এই ধরনের কোনো সুযোগ ছিল না। কিন্তু বর্তমানে মার্ক জুকারবার্গ ফেসবুক প্রোফাইলে এই সুবিধাটি নিয়ে এসেছে।

 

তবে, ফেসবুক পেজ কিংবা গ্রুপ থেকে টাকা আয় করার জন্য যেমনি কিছু শর্ত ছিল। ফেসবুক প্রোফাইল থেকে টাকা আয় করতে হলেও এরকম কিছু শর্ত পূরণ করতে হবে।

 

 

 

আজকের আর্টিকেলটি এসকল বিষয়বস্তু নিয়েই সাজানো হয়েছে। অতএব, কিভাবে ফেসবুক প্রোফাইল থেকে টাকা আয় করা যাবে, কি কি শর্ত পূরণ করতে হবে? ইত্যাদি সবকিছু জানতে আজকের আর্টিকেলে আপনাকে স্বাগতম।

 

ফেসবুক প্রোফাইল থেকে টাকা আয় কিভাবে?

 

ফেসবুক প্রোফাইল থেকে দুই (২) ভাবে টাকা আয় করা যাবে। যথা-

 

১. ফেসবুক রিলস-এ ভিডিও আপলোড করার মাধ্যমে।

 

২. ফেসবুক প্রফেশনাল মুড থেকে।

 

১. ফেসবুক রিলস-এ ভিডিও আপলোড করে টাকা আয়ঃ-

ফেসবুক রিলস মূলত হলো শর্ট ভিডিও প্ল্যাটফর্ম। আমরা বর্তমান সময়ে টিকটক বা ইউটিউবে যেসকল শর্ট ভিডিও দেখছি, ফেসবুক রিলসও সেরকমই একটি শর্ট ভিডিও প্ল্যাটফর্ম হিসেবে তৈরি হতে যাচ্ছে।

 

ফেসবুক রিলস-এ ভিডিও আপলোড করে টাকা আয় করার দুই (২) টি পদ্ধতি রয়েছে। যথা-

 

ফেসবুক বোনাস প্রোগ্রাম। এবং

বিজ্ঞাপণ বা এড এর মাধ্যমে।

ফেসবুক বোনাস প্রোগ্রাম থেকে টাকা আয় নির্দিষ্ট সময়ের জন্য প্রযোজ্য হবে। বলা যায়, এটি এক প্রকার অফার হিসেবে ফেসবুক আমাদের জন্য চালু করেছে।

 

ফেসবুক বলছে, এটি শুধুমাত্র ফেসবুকের ক্রিয়েটরসদের জন্য। এখান থেকে প্রতিটি ক্রিয়েটরস প্রতি মাসে সর্বোচ্চ পঁয়ত্রিশ হাজার (৩৫,০০০) ডলার আয় করতে পারবে। বিস্তারিত আরও জানতে ক্লিক করুন- এখানে

 

facebook reels program bonus

 

আমরা ফেসবুকে যেসকল শর্ট বা রিলস ভিডিও আপলোড করবো। সেসকল ভিডিওতে দুই (২) ধরনের বিজ্ঞাপণ দেখানো হবে। In Stream Ads এবং Sricker Ads.

 

তবে, বর্তমানে সকল দেশেরে জন্য রিলস ভিডিওতে বিজ্ঞাপণ বসিয়ে টাকা আয় করার সুযোগ চালু নেই। ট্রায়াল হিসেবে কয়েকটি দেশে এই সুবিধাটি চালু রয়েছে। ধীরে ধীরে সকল দেশে চালু করা হবে।

 

যেহেতু সকলের জন্য এটি এখন প্রযোজ্য নয় কিংবা আমাদের বাংলাদেশে এটি চালু নেই। যখন চালু হবে তখন আমরা আমাদের রিলস ভিডিওতে এসকল বিজ্ঞাপণ বসিয়ে ফেসবুক প্রোফাইল থেকে টাকা আয় করতে পারবো।

 

২. ফেসবুক প্রফেশনাল প্রোফাইল থেকে টাকা আয় কিভাবে?

ফেসবুক প্রোফাইল থেকে টাকা আয় করতে হলে প্রথমেই আপনার প্রোফাইল বা একাউন্টটি-কে প্রফেশনাল মুড-এ আপডেট করে নিতে হবে।

 

 

 

ইতিমধ্যে অনেকের একাউন্টেই এই ফিচারটি ফেসবুক থেকে চালু করা হয়েছে এবং কিছু কিছু একাউন্টে ফিচারটি সচল রয়েছে। যেটি আপনাকে নিজ থেকে চালু করে নিতে হবে। কিভাবে ফেসবুক প্রেফেশনাল মুড চালু করবেন তা জানতে পূর্বের পোস্টটি পড়তে পারেন।

 

তবে, যাদের একাউন্টে এই ফিচারটি সচল করা হয় নি, আপনাদেরকে অপেক্ষা করতে হবে। ধীরে ধীরে ফেসবুক নিজ থেকেই এটি চালু করে দিবে।

 

প্রফেশনাল মুড-এ আপডেট বা পরিবর্তন করার পর আপনাকে রিলস বোনাস প্রোগ্রামে জয়েন বা রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। 

 

লিংকে ক্লিক করার পর কিছুটা নিচের দিকে স্ক্রল করলে একটি ফরম পাবেন। ফরমে আপনার প্রোফাইল বা পেজকে সিলেক্ট করে প্রয়োজনীয় তথ্যের মাধ্যমে ফরমটি পূরণ করে সাবমিট বা রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। ফরমে যেসকল তথ্য দিতে হবে-

 

আপনার ফাস্ট নেম ও লাস্ট নেম।

আপনার ই-মেইল একাউন্ট। [১ ও ২ অপশনগুলি ডিফিল্ট হিসেবে অটোমেটিক পূরণকৃত থাকবে, প্রয়োজনে পরিবর্তন করতে পারবেন।]

পেজের ক্যাটাগরি লিখুন। (প্রোফাইলে যেসকল ভিডিও আপলাড করবেন তা লিখবেন।)

তারপর আপনার ইনস্টাগ্রাম একাউন্টের লিংক বসাবেন। এবং

Program Preference অপশন থেকে All of the above সিলেক্ট করুন।

facebook reels program form

 

সর্বশেষ Submit বাটনে ট্যাপ করুন। ব্যাস, আপনার রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন হয়ে যাবে।

 

এবার ফেসবুকের নিকট আপনার আবেদনটি জমা হয়ে যাবে এবং ফেসবুক আপনার প্রোফাইলটিকে রিভিও বা যাচাই করে দেখবে। যদি সবকিছু ঠিক থাকে তাহলে আপনাকে রিলস ভিডিও আপলোড করার অপশনটি সচল করে দিবে।

 

তবে, এক্ষেত্রেও কিছু শর্ত রয়েছে।

 

আপনি যেসকল ভিডিওগুলি রিলস এ আপলোড করবেন তা নিজস্বকৃত তৈরি ভিডিও হতে হবে।

ফেসবুক এর পলিসি মেনে ভিডিও আপলোড করতে হবে।

আপলোডকৃত ভিডিওগুলিতে ত্রিশ (৩০) দিনের মধ্যে এক হাজার (১,০০০) ভিউস পেতে হবে।

facebook reels earn money

 

 

 

এসকল শর্ত পূরণ করতে পারলে ফেসবুক নিজ থেকে আপনাকে ই-মেইল বা নটিফিকেশন এর মাধ্যমে জানিয়ে দিবে যে আপনি রিলস থেকে টাকা আয় করার জন্য সিলেক্ট হয়েছেন।

 

তখন আপনাকে বোনাস পাবার জন্য আরও কিছু তথ্য কিংবা আপনার ব্যাংক একাউন্ট নম্বর যুক্ত করতে হবে সর্বশেষে আপনার উপার্জনকৃত টাকা আপনার ব্যাংক একাউন্টে পাঠিয়ে দেওয়া হবে।

 

 সর্বশেষ আরও কিছু কথা, বর্তমান সময়ে ফেসবুক প্রোফাইল থেকে টাকা আয় করা অনেকটা সংকীর্ণ ও ঝামেলা মনে হতে পারে। কেননা এখনও পর্যন্ত এটি প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে। পরবর্তীতে যখন সকলের জন্য সচল করা হবে, তখন হয়তো এতো পরিমাণ কষ্ট করতে হবে না।

 

আমরা এখন যেমনি যেকোনো ফেসবুক পেজ থেকে খুবই সহজে টাকা আয় করতে পারছি, ঠিক তেমনি আমাদের ফেসবুক প্রোফাইল থেকেও টাকা আয় করতে পারবো। শুধুমাত্র কিছু দিনের অপেক্ষা করতে হবে।

 

প্রিয় পাঠক, ফেসবুক প্রোফাইল থেকে টাকা আয় করার উপায় সম্পর্কে ফেসবুক থেকে আমরা যতটুকু তথ্য পেয়েছি ঠিক ততটুকুই আপনাদের সাথে শেয়ার করার চেষ্টা করেছি। পরবর্তীতে ফেসবুক যদি প্রোফাইল থেকে টাকা আয় করার পদ্ধতি সম্পর্কে নতুন কোনো আপডেট প্রকাশ করে তাহলে আমরা অবশ্যই চেষ্টা করবো আপনাদের সাথে শেয়ার করার জন্য।

 

ফেসবুক প্রোফাইল থেকে টাকা আয় সম্পর্কে আপনার কোনো প্রশ্ন বা মতামত থাকলে অবশ্যই আমাদের নিকট শেয়ার করার অনুরোধ রইলো। আপনার আপনার অনুরোধকে সর্বোচ্চ পরিমাণে রেসপন্স করার চেষ্টা করবো।

 

10 ways to earn money from Facebook !

 

আমরা সবাই জানি, Facebook বিশ্বের সব থেকে বড়ো সোশ্যাল মিডিয়া ওয়েবসাইট।

 

এই social media সাইটের মাসে ২.২ বিলিয়ন রেজিস্টার্ড একটিভ ইউসার রয়েছে। এবং এই সংখ্যা বেড়েই যাচ্ছে।

 

 

 

এবং, এই ফেসবুকে আমরা একাউন্ট বানিয়ে দিনের পর দিন, চ্যাটিং (chatting) করে এবং অন্যদের স্টেটাস (status) দেখে সময় নষ্ট করি। কিন্তু, আপনি চাইলে, এই বিশ্বের সব থেকে বিখ্যাত social media website টিকে টাকা আয় করার উপায় বানিয়ে এর লাভ নিতে পারবেন।

 

কিন্তু, সত্যি কথা বলতে গেলে, ফেসবুক থেকে টাকা আয় করা এমনিতে সোজা কাজ নয়।

 

এবং, এর দ্বারা আপনি সহজে অনলাইন আয় করতে পারবেননা।

 

তাও, আপনি যদি online income করার একটি নতুন উপায় খুঁজছেন, তাহলে এবেপারে নিচে অবশই জেনেনিতে পারেন।

 

 

ফেসবুকে কিভাবে টাকা আয় করা যায় ? (১০ টি আয়ের পদ্ধতি)

 

আমি আগেই বলেছি, ফেইসবুক একাউন্ট খুলে আয় করা তেমন একটি সোজা কাজ নয় কিন্তু, ইন্টারনেটে এমন কয়েকটি প্রমাণিত উপায় রয়েছে, যেগুলি ব্যবহার করে ফেসবুকের মাধ্যমে আয় বা ইনকাম করা যেতে পারে। এবং অনেকেই করছে।

 

 

 

তাই, ইন্টারনেট এবং অনেক জায়গার থেকে সংগ্রহ কোরে, আমি আপনাদের এমন ৭ টি পদ্ধতি বলবো, যেগুলি ব্যবহার কোরে আপনারা Facebook কে অনলাইন আয়ের মাধ্যম বানিয়ে নিতে পারবেন।

 

১. ফেসবুক মার্কেট প্লেস (Facebook market place)

 

Earn money from marketplace !

আপনাদের মধ্যে হয়তো অনেকেই Facebook market place এর ব্যাপারে জানান ? তাইতো ?

 

ফেসবুকের এই সার্ভিস দ্বারা, আপনি যেকোনো product, service বা offer এখানে লিস্ট করতে পারবেন এবং লোকেদের দেখাতে পারবেন।

 

 

 

এইটা, একটি online shopping website এর মতোই, যেখানে যেকোনো ফেসবুক একাউন্ট থাকা ব্যক্তি নিজের প্রোডাক্ট বা সার্ভিস অনলাইনে ডিসপ্লে করে বেচা কেনা করতে পারবে এবং দ্বারা টাকা কমাতে পারবেন।

 

সোজা ভাবে বললে, আপনি যদি কিছু বিক্রি করতে চান, তাহলে ঘরে বসেই “Facebook মার্কেট প্লেসের” দ্বারা সেই জিনিষটির বিজ্ঞাপন হাজার হাজার লোকেদের দেখিয়ে দিতে পারবেন।

 

এবং যদি কোনো ব্যক্তি আপনার ডিসপ্লে করা পণ্য কিনে নিতে চাইবেন, তাহলে সে আপনাকে সরাসরি ফেসবুক এর মাধ্যমে যোগাযোগ করতে পারবে।

 

এতে, ঘরে বসেই আপনি আপনার প্রোডাক্টের জন্য কাস্টমার (customer) পেতে থাকবেন এবং আপনার লাভ হতে থাকবে।

 

Market place দ্বারা টাকা কিভাবে কমাবেন ?

আপনার সর্ব প্রথমে করতে হবে যে, একটি ভালো এবং চাহিদা থাকা পণ্য (product) কোনো wholesaler বা কম দামে দেয়া দোকান থেকে কিনতে হবে।

 

যেমন, সুন্দর সুন্দর কানের দুল, স্টাইলিশ (stylish) শাড়ী, ছেলেদের কাপড় বা যেকোনো প্রোডাক্ট যার মার্কেটে চাহিদা অনেক।

 

তারপর আপনার নিজের ফেসবুক একাউন্ট থেকে “Facebook market place” এ গিয়ে প্রোডাক্টের ছবি, ডিটেলস, নিজের মোবাইল নম্বর এবং দাম সহ সবটাই মার্কেট প্লেস এ দিয়ে দিতে হবে।

 

আপনি নিজের প্রোডাক্টের ডিসপ্লে বা বিজ্ঞাপন ফ্রীতেই দিতে পারবেন।

 

এখন, আপনার দেওয়া বিজ্ঞাপন আপনি নিজের ফেসবুক গ্রুপ, প্রোফাইল এবং “promote ad” অপশনের দ্বারা যেকোনো শহর, দেশ বা লোকাল জায়গায় দেখাতে পারবেন।

 

আপনার দেওয়া বিজ্ঞাপন বা প্রোডাক্ট যদি কারো ভালো লাগে, তাহলে সে আপনাকে ডাইরেক্ট মোবাইল নম্বরে ফোন করে দামাদামি বা প্রোডাক্ট এর বেপারে কথা বলতে পারবে।

 

বিশ্বাস করুন, এরকম ফেসবুক মার্কেটপ্লেস বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে লোকেরা ঘরে বসেই নিজের অনলাইন ব্যবসা চলিয়ে টাকা ইনকাম করছেন।

 

তাই আপনিও এই ভাবে ইনকাম করতে পারবেন।

 

মনে রাখবেন, অনলাইন ব্যবসার মূল মন্ত্র হলো চাহিদা এবং কম দাম।

 

আপনি যদি, চাহিদা থাকা কোনো প্রোডাক্ট লোকাল মার্কেট থেকে কম দামে বিক্রি করেন, তাহলে সেই product এর বিজ্ঞাপন দিয়ে ফেসবুক থেকে আপনি অনেক কাস্টমার পেয়ে যাবেন।

 

 

 

বিশেষ করে আপনার লোকাল এরিয়া বা জায়গার থেকে কাস্টমার পাওয়া অনেক সোজা।

 

কারণ, আপনার ফেসবুক প্রোফাইলে বিশেষ কোরে আপনার শহরের বা আসে পাশে থাকা লোকেরাই  ফ্রেন্ডস (friends) হিসেবে আপনার সাথে জড়িত।

 

তাই, সেই ফ্রেন্ডস দেড় আপনি আপনার কাস্টমার বানিয়ে নিতে পারবেন। এবং তাই, প্রোডাক্ট বা জিনিস ডেলিভারি (delivery) দিতেও আপনার কোনো অসুবিধে হবেনা।

 

অধিক জানুন ফেসবুক মার্কেট প্লেস এর ব্যাপারে

 

২. ভিডিও আপলোড কোরে আয় করুন (Ads breaks)

 

Earn money by uploading videos on Facebook.

এখন, আপনারা ফেসবুকের নতুন “video monetization” এর বেপারে শুনেছেন কি না তা আমি জানিনা।

 

কিন্তু, Facebook video monetization বা ads break ফেসবুকের তরফ থেকে এমন একটি নতুন প্রক্রিয়া বা সার্ভিস যার দ্বারা আপনি ফেসবুক ফ্যান পেজে ভিডিও আপলোড কোরে আনলিমিটেড (unlimited) ইনকাম করতে পারবেন।

 

চলুন এবেপারে আরো জেনেনেই।

 

Facebook Ads breaks বা video monetization কি ?

আসলে Facebook ads breaks হলো ছোট্ট ছোট্ট বিজ্ঞাপন, যেগুলি আপনারা নিজের ফেসবুক ভিডিওতে দেখাতে পারবেন এবং তার থেকে টাকা আয় কোরতে পারবেন।

 

আপনি ভিডিও নিজের ফেসবুক পেজে আপলোড করতে হবে এবং এই মাধ্যমে ইনকাম করার জন্য আপনার একটি ফেসবুক ফ্যান পেজের দরকার হবে।

 

 

 

মনে রাখবেন, আপনি নিজের Facebook profile এ আপলোড করা ভিডিওতে এই ads breaks বা বিজ্ঞাপন লাগাতে পারবেননা।

 

হে, পুরোটাই YouTube channel এর মতোই।

 

ইউটিউবে যেরকম আমরা ভিডিও আপলোড কোরে তাতে Google AdSense এর বিজ্ঞাপন দেখিয়ে আয় করে থাকি, ঠিক সেভাবেই Facebook পেজে নিজের বানানো ভিডিও আপলোড কোরে, ads breaks এর মাধ্যমে বিজ্ঞাপন দেখিয়ে টাকা আয় করতে পারা যাবে।

 

কিন্তু, যেরকম ইউটিউবের থেকে আয় করার আগে আমাদের কিছু নিয়ম কানুন বা প্রয়োজনীয়তা মানার দরকার, ঠিক তেমনি ফেসবুক পেজে ভিডিও আপলোড কোরে টাকা আয় করার জন্য আপনার কিছু নিয়ম বা প্রয়োজনীয়তার প্রয়োজন হবে।

 

Ads breaks এর ব্যাপারে আমি সবটাই এখানে ভালো কোরে বলেছি – ফেসবুকে ভিডিও আপলোড কোরে ইনকাম করুন (ads breaks).

 

৩. Affiliate marketing এর মাধ্যমে আয়

 

Earn money from affiliate marketing

Affiliate marketing এমন একটি শব্দ বা বিষয়, যেই বিষয়ে প্রত্যেকটি ব্লগার বা ইউটিউব চ্যানেল এর মালিকেরা জানেন।

 

অনলাইন টাকা আয় করার ক্ষেত্রে এটা সবচেয়ে লাভকজনক এবং কাজে আশা উপায়।

 

এফিলিয়াট মার্কেটিং দ্বারা আজ অনেকেই হাজার হাজার টাকা ঘরে বসেই আয় করছেন।

 

আসলে, “এফিলিয়েট মার্কেটিং” এমন একটি উপায় বা মাধ্যম যার দ্বারা আপনি ইন্টারনেটে থাকা অনেক রকমের “online shopping website” থেকে যেকোনো জিনিস বা product নিজের ব্লগ, ইউটিউবের চ্যানেল বা ফেসবুকের ফ্যান পেজে দেখিয়ে কিংবা তাদের প্রোমোট কোরে কমিশন (commission) প্রাপ্ত করতে পারবেন।

 

বড় বড় অনলাইন শপিং সাইট যেমন, Amazon, Flipkart বা snapdeal তাদের যেকোনো প্রোডাক্ট এফিলিয়েট লিংকের দ্বারা লোকেদের সাথে শেয়ার বা প্রোমোট করার সুযোগ আমাদের দেয়।

 

এবং, যখন আমাদের শেয়ার করা প্রোডাক্ট এর লিংক থেকে কেও সেই অনলাইন ওয়েবসাইট থেকে কিছু কেনা কাটা করেন তখন আমরা কিছু কমিশন টাকা কমিয়ে নেই।

 

আয় করা কমিশন (commission) আলাদা আলাদা প্রোডাক্টের জন্য আলাদা আলাদা হতে পারে। আর এটাই হলো এফিলিয়েট মার্কেটিং।

 

এখন, আপনার যদি একটি ফেসবুক ফ্যান পেজ (Facebook page) আছে এবং তাতে অনেক লাইক (like) আছে বা একটি ফেসবুক গ্রুপ (Facebook group) আছে তাহলে সেই পেজে বা গ্রুপে অনেক রকমের প্রোডাক্টের এফিলিয়েট লিংক শেয়ার করতে পারবেন।

 

এবং, যখনি কেও আপনার শেয়ার করা প্রোডাক্টের লিংক থেকে কিছু কিনবে, তখন আপনি যেই ওয়েবসাইট থেকে এফিলিয়েট লিংক শেয়ার করেছেন, তাদের তরফথেকে commission আয় করবেন।

 

 

এফিলিয়েট মার্কেটিং ফেসবুক থেকে টাকা আয় করার একটি ভালো উপায় আপনার জন্য প্রমাণিত হতে পারে।

 

খুশির কথা এটাই যে, আজকাল যেকোনো অনলাইন শপিং সাইটে আপনি নিজেকে affiliate marketer হিসেবে রেজিস্টার কোরতে পারবেন এবং তাদের যেকোনো প্রোডাক্ট শেয়ার করে আয় করতে পারবেন।

 

কিছু বিখ্যাত এফিলিয়েট প্রোগ্রাম গুলো –

 

Amazon affiliate program 

eBay affiliate program 

 

৪. Direct local Product advertising

 

আপনার ফেসবুক একাউন্টে যদি অনেক ফ্রেন্ডস আছে, একটি গ্রুপ আছে কিংবা আপনার একটি ফেসবুক ফ্যান পেজ (fan page) আছে যেখানে হাজার হাজার লাইক (like) রয়েছে, তাহলে তাতে লোকাল প্রোডাক্টের বিজ্ঞাপন দেখিয়ে আপনি আয় করতে পারবেন।

 

আপনি যেকোনো বিজ্ঞাপন দেখাতে পারবেন, যেকোনো নতুন দোকানের বিজ্ঞাপন, কোনো জায়গা, রেস্টুরেন্ট বা আপনার আসে পাশে থাকা যেকোনো মার্কেটের বিজ্ঞাপন নিজের ফেসবুক পেজ বা প্রোফাইলে দেখিয়ে আয় করতে পারবেন।

 

এভাবে ফেসবুক পেজ থেকে আয় করার জন্য, আপনার সবচেয়ে প্রথমে, যারা বিজ্ঞাপন দেখাতে চান তাদের খুঁজে বের করতে হবে।

 

নিজের আসে পাশে থাকা দোকান গুলোতে গিয়ে জিগেশ করতে পারেন যে তারা আপনার ফেসবুক পেজে কিছু বিজ্ঞাপন দেখিয়ে ব্যবসার প্রচার করতে চান নাকি।

 

মনে রাখবেন, আজকাল ফেসবুকের মতো সোশ্যাল মিডিয়াতে হাজার হাজার লোকেরা অনলাইন সক্রিয় থাকে।

 

এবং তাই, যেকোনো জিনিসের জন্য বিজ্ঞাপন দেখানো বা যেকোনো জিনিস প্রোমোট করার ক্ষেত্রে ফেসবুক (Facebook) অনেক লাভ জনক একটি মাধ্যম।

 

তাই, আপনার ফেসবুক পেজে যদি ১০ থেকে ৫০ হাজারের মধ্যে লাইক থাকে তাহলে আপনি সহজে অনেক লোকাল advertiser পেয়ে যাবেন যারা আপনার ফেসবুক পেজে লোকাল বিজ্ঞাপন দেখানোর জন্য আপনাকে টাকা দিবে।

 

এর বাইরেও, অনেক ইউটিউবের চ্যানেল মালিক এবং ব্লগের মালিক রয়েছে যারা আপনার ফেসবুক পেজে তাদের ভিডিও বা ব্লগের বিজ্ঞাপন দেখানোর জন্য আপনাকে টাকা দিতে পারে।

 

এতে, তারা নিজের ব্লগ আর্টিকেল বা ইউটিউবের ভিডিওতে ফ্রীতেই সোশ্যাল ট্রাফিক (social traffic) পেয়ে যাবে।

 

কিন্তু, আপনার প্রথমে এমন কিছু ব্লগ মালিক দের খুঁজে বের করতে হবে যারা নিজের ব্লগের জন্য সোশ্যাল ট্রাফিক কিনতে চান।

 

৫. ফেসবুক পেজ বিক্রি করুন

 

অনেক ব্লগার বা ইউটিউবের চ্যানেল মালিকেরা নিজের ব্লগ বা চ্যানেলের প্রোমোশনের (promotion) জন্য অনেক রকমের ফেসবুক পেজ কিনতে চান।

 

যদি আপনার Facebook page এ ভালো সংখ্যায় লাইক (likes) আছে, তাহলে সেই পেজ আপনি ভালো দামে বিক্রি করে টাকা কমিয়ে নিতে পারবেন।

 

আপনি যে আপনার পেজ টি বিক্রি করতে চান এবেপারে আপনি একটি পোস্ট নিজের ফেসবুক গ্রুপ বা একাউন্টে দিয়ে দেখতে পারেন।

 

এর বাইরেও, ফেসবুকে অনেক কেনা/বেচা (buy/sell) গ্রুপ রয়েছে যেগুলিতে গিয়ে আপনি নিজের পেজ বিক্রি করার বিজ্ঞাপন / পোস্ট দিতে পারেন।

 

এবং, যদি কেও আপনার পেজ কিনতে চান, তাহলে সে আপনাকে ডাইরেক্ট ফেসবুকের মাধ্যমে কন্টাক্ট (contact) করতে পারবে।

 

৬. ফেসবুক গ্রুপ থেকে ইনকাম করুন

 

যদি আপনার কাছে এমন একটি ফেসবুক গ্রুপ রয়েছে যেটাতে প্রচুর members বা followers আছে, তাহলে অবশই সেই গ্রুপ থেকে ভালো পরিমানে ইনকাম করা সম্ভব।

 

এমনিতে ফেসবুক গ্রুপ থেকে ইনকাম করার জন্য আপনার গ্রুপ এর জনপ্রিয়তা কতটা অধিক সেটা হলো মূল বিষয়।

 

Facebook group থেকে টাকা আয় করার জন্য সবচে প্রথমে আপনাকে নিজের Facebook account থেকে একটি Group তৈরি করতে হবে।

 

এবার, গ্রুপে নিয়মিত মজার কনটেন্ট পোস্ট করতে থাকতে হবে এবং কমেও ১০ হাজার active members জোগাড় করতে হবে।

 

নিজের group এর members দের সব সময় গ্রুপে active রাখার চেষ্টা করতে হবে।

 

এর জন্য, questions, blog post, images, videos বা polls ইত্যাদির ব্যবহার করা উচিত।

 

এখন, এক বার আপনার গ্রুপ জনপ্রিয় হয়ে দাঁড়ালে এবং সেখানে কমেও ১০ হাজার followers হয়ে গেলে, আপনি এই উপায় গুলো ব্যবহার করে টাকা আয় করতে পারবেন।

 

Paid surveys গুলোর মাধ্যমে।

Sponsored content গুলো publish করে।

আপনি নিজের product/book/services ইত্যাদি বিক্রি করতে পারবেন।

Affiliate marketing এর মাধ্যমে।

নিজের group বিক্রি করে।

Group থেকে বিভিন্ন blogs বা YouTube channel গুলোতে traffic বিক্রি করিয়ে।

 

৭. PPD Program Join জয়েন করুন

 

PPD মানে হলো Pay Per Download, যেখানে আপনাকে প্রত্যেক download এর বিপরীতে টাকা দেওয়া হয়।

 

এর মাধ্যমে টাকা ইনকাম করার জন্য, আপনাকে প্রথমে একটি ভালো এবং trusted PPD program এর সাথে সংযুক্ত (join) হতে হবে।

 

এবার PPD program গুলোর তরফ থেকে আপনাকে কিছু products গুলো download করতে দেওয়া হবে।

 

এবার, আপনি এই digital products (apps, games) গুলো নিজের Facebook group এর মধ্যে post করে সেগুলোকে download করাতে পারবেন।

 

Apps, games, software ইত্যাদি গুলো যত বেশি লোকেরা download করবেন ততটাই অধিক আপনি ইনকাম করতে পারবেন।

 

তবে, আপনার ফেসবুক গ্রুপে যত বেশি members বা followers থাকবেন, ততটাই অধিক লোকেরা সেগুলো ডাউনলোড করার সুযোগ হয়ে দাঁড়াবে এবং আপনি অধিক ইনকাম করতে পারবেন।

 

. ফেসবুক পেজের মাধ্যমে টাকা আয়

আপনার ফেসবুক পেজে যখন প্রচুর পরিমানে ফ্যান-ফলোয়ার ও লাইক থাকবে তখন থেকে আপনি বিভিন্ন উপায়ে ফেসবুক থেকে টাকা আয় করা শুরু করতে পারবেন। ব্যবসা বা প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে ফেসবুক লাইক পেজ বা ফ্যান পেজ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। বিশেষকরে আপনার কোন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থাকলে সেই প্রতিষ্ঠানের নামে ফেসবুক পেজ তৈরি করে খুব সহজে প্রতিষ্ঠানের প্রচারনা চালাতে পারেন।

 

এছাড়াও যখন আপনার ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের ফেসবুক পেজে প্রচুর পরিমানে লাইক থাকবে তখন আপনি চাইলে সহজে আপনার প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন পন্য বা প্রোডাক্ট ফেসবুক পেজে আপলোড করে পন্যের প্রচার ও প্রসার চালিয়ে অনলাইনের মাধ্যমে সহজে ক্রেতার নিকট পন্য বিক্রি করতে পারবেন।

কিভাবে ফেসবুক পেজ থেকে টাকা আয় করবেন?

সাধারণত ফেসবুক অফিসিয়ালি দুটি উপায়ে ফেসবুক পেজের মাধ্যমে টাকা আয় করার সুযোগ দেয়। যেই টাকা সরাসরি ফেসবুক হতে আপনাকে পরিশোদ করা হবে। এ ক্ষেত্রে আপনাকে কারো সাথে কোন ধরনের কনটাক করার প্রয়োজন হবে না। আপনি সরাসরি আপনার ফেসবুক পেজকে মনিটাইজ করে ফেসবুক হতে টাকা আয় করতে পারবেন।

ফেসবুকে ভিডিও আপলোড করে টাকা আয়

সম্প্রতি ইউটিউবের মত ফেসবুকে ভিডিও আপলোড করে ভিডিওতে বিজ্ঞাপন শো করানো মাধ্যমে ফেসবুক থেকে টাকা আয় করা সম্ভব হচ্ছে। Facebook এ আয় করার এই নতুন পদ্ধতিকে বলা হয় “Facebook Video Monetization বা In-Stream Ads. এই In-Stream Ads বা ভিডিও Monetization এর কিছু নিয়ম বা যোগ্যতা রয়েছে, যেগুলো ফিলআপ হলে ফেসবুক পেজে ভিডিও আপলোড করে ফেসবুক থেকে টাকা আয় করা যায়।

ফেসবুক In-Stream Ads কি?

ফেসুবক In-Stream Ads হলো এমন একটি সার্ভিস যেটি দিয়ে ফেসবুক পেজে আপলোড করা ভিডিওতে বিজ্ঞাপন বা ads শো করানো যায়। এই বিজ্ঞাপন গুলো যখন লোকজন দেখবে বা ক্লিক করবে তখন আপনি ফেসবুক থেকে টাকা আয় করতে পারবেন। তবে ফেসুবক In-Stream Ads এর বিজ্ঞাপন ফেসবুক পেজ ব্যাতীত অন্য কোথায় ব্যবহার করা যায় না।

ফেসবুক In-Stream Ads পাওয়ার জন্য কী কী লাগবে?

ফেসবুক In-Stream Ads সার্ভিস ব্যবহার করার জন্য আপনার ফেসবুক পেজের কিছু যোগ্যতার প্রয়োজন হবে। আপনার ফেসবুকে পেজে নিচের যোগ্যতাগুলো না থাকলে ভিডিওতে In-Stream Ads ব্যবহার করতে পারবেন না।

ফেসবুক In-Stream Ads পাওয়ার জন্য কী কী লাগবে?

আপনার নিজের একটি ফেসবুক পেজ থাকতে হবে। ফেসুবক পেজ ছাড়া অন্য কোথায় In-Stream Ads এর বিজ্ঞাপন ভিডিওতে লাগানো যায় না। 

আপনার ফেসবুক পেজে ১০,০০০ লাইক থাকতে হবে।

গত ৬০ দিনে আপনার ফেসবুক পেজের ভিডিওতে মিনিমাম ৩০,০০০ ভিউস থাকতে হবে এবং প্রত্যেকটি ভিউ মিনিমাম ১ মিনিটের হতে হবে। তাছাড়া আপনার প্রত্যেকটি ভিডিও কমপক্ষে ৩ মিনিট লম্বা হতে হবে। কারণ ৩ মিনিটের ছোট ভিডিওতে ফেসবুক বিজ্ঞাপন শো করে না।

আপনার বয়স অবশ্যই কপক্ষে ১৮ হতে হবে।

আপনার ভিডিও এর ভাষা ফেসবুক In-Stream Ads সাপোর্ট করে না, এমন ভিডিও আপলোড করলে ভিডিও মনিটাইজ হবে না। তবে টেনশনের কোন কারণ নেই, ফেসবুক In-Stream Ads বাংলা ভাষা সাপোর্ট করে।

ফেসবুক এর Partner Monetisation Policies মেনে ভিডিও তৈরি করতে হবে।

ফেসবুক পেজের In-Stream Ads এর যোগ্যতা যাচাইঃ

আপনার ফেসবুক পেজটি ফেসবুক In-Stream Ads এর যোগ্যতা সম্পন্ন কি না সেটি যাচাই করার জন্য প্রথমে আপনার ফেসবুক একাউন্টে লগইন করতে হবে। তারপর ফেসবুক In-Stream Ads এর এই অফিসিয়াল লিংকে ক্লিক করে আপনার ফেসবুক পেজটি In-Stream Ads এর জন্য এলিজিবল কি না সেটা যাচাই করে নিতে পারবেন।

ফেসবুক পেজের In-Stream Ads এর যোগ্যতা

উপরের চিত্রে দেখুন আমাদের ফেসবুক পেজটি এখনো ফেসবুক In-Stream Ads এর জন্য Not Eligible বলছে। এ ক্ষেত্রে আপনাকে উপরের সকল নিয়মগুলো ফলো করে ফেসবুকের নির্ধারিত লক্ষ্য অর্জণ করতে হবে। তাহলে আপনার ফেসবুক পেজটি অটোমেটি এলিজিবল হয়ে যাবে।

ইউটিউবের ভিডিও ফেসবুকে আপলোড করে টাকা আয় করা যাবে কি না?

নতুনদের ক্ষেত্রে এটা খুব কমন একটা প্রশ্ন। ফেসবুক এখনো পর্যন্ত ইউটিউবে আপলোড হওয়া ভিডিও ফেসবুকে আপলোড করতে দিচ্ছে। কিন্তু আপনি অন্যের ভিডিও ইউটিউব থেকে ডাউনলোড করে ফেসবুকে আপলোড দিতে পারবেন না।

 

আপনি হয়ত ভাবছেন আমি অন্যের ভিডিও ইউটিউব থেকে ডাউনলোড করে ফেসবুকে আপলোড করেছি কি না, সেটা কি আর ফেসবুক বুঝতে পারবে? হ্যাঁ, ফেসবুক সেটা বুঝতে পারবে না। তবে কেউ যদি সেই ভিডিও ইতোপূর্বে ফেসবুকে আপলোড করে থাকে তাহলে সেটি ফেসবুক বুঝতে পারবে।

 

এ ক্ষেত্রে আপনি অটোমেটিক কপিরাইটের দায়ে ফেসবুকের কাছে ফেসে যাবেন। তবে সেই ভিডিওটি এখনো পর্যন্ত ফেসবুকে আপলোড না হলে ফেসবুক সেটি বুঝতে পারবে না। তবে ভিডিও এর প্রকৃত মালিক ভিডিওটি দেখতে পেলে আপনার ভিডিও এর বিরুদ্ধে ফেসবুকের কাছে রিপোর্ট করলে আপনি ধরা খেয়ে যাবে। এ ক্ষেত্রে আপনার ফেসবুক এর ভিডিও মনিটাইজেশন অটোমেটি বন্ধ হয়ে যাবে অর্থাৎ কপিরাইটের কারনে ভিডিও আপলোড করে ফেসবুক থেকে আপনি আর কখনো আয় করতে পারবেন না।

৯. ফেসবুক Instant Article থেকে আয়ঃ

Instant Articles হচ্ছে ফেইসবুক এর মোবাইল Publishing টুল। যার মাধ্যমে একটি ওয়েবসাইট বা ব্লগের ডিজাইনকে কাষ্টমাইজ করে অপটিমাইজ করার মাধ্যমে দ্রুততম সময়ে লোড নেওয়া হয়। অপটিমাইজ করার ক্ষেত্রে ফেইসবুক Instant Articles ওয়েবসাইটের ডিজাইনকে কোন গুরুত্ব না দিয়ে শুধুমাত্র আর্টিকেল গুরুত্ব দিয়ে একটি ব্লগ বা ওয়েবসাইটের কনটেন্ট দ্রুত লোড নিতে সাহায্য করে।

 

ফেসবুক Instant Articles এর দুটি সুবিধা রয়েছে। Instant Articles ব্যবহার করে এক দিকে আপনার ব্লগের পোস্ট দ্রুত গতির বানাতে পারবেন, অন্যদিকে Instant Articles এর মাধ্যমে পোস্টের ভীতরে ফেসবুকের বিজ্ঞাপন ব্যবহার করে ফেসবুক হতে আয় করতে পারবেন। সাধারণত অনলাইন নিউজ সংক্রান্ত ওয়েব পোর্টালগুলো ফেসবুক Instant Articles হতে বেশি টাকা আয় করতে পারে।

ফেসবুক Instant Article থেকে আয়

উপরের চিত্রটি একটু ভালোভাবে লক্ষ্য করুন। এই চিত্রটি আমার মোবাইলের ফেসবুক এ্যাপ হতে স্ক্রিনশটের মাধ্যমে নেওয়া হয়েছে। আপনি ভালোভাবে লক্ষ্য করলে চিত্রটির তীর চিহ্নিত অংশে ছোট্ট একটি আইকন দেখতে পাবেন। মূলত ফেসবুক মোবাইল এ্যাপে এ ধরনের আইকনযুক্ত যে পোস্ট দেখা যায় সেগুলোই হচ্ছে ফেসবুক Instant Article পোস্ট। এ ধরনের পোস্ট শুধুমাত্র ফেসবুক মোবাইলে এ্যাপে সাপোর্ট করে।

 

Instant Articles ব্যবহার করার জন্য আপনার একটি ব্লগ প্রয়োজন হবে এবং ব্লগে কমপক্ষে ২০ টি পোস্ট থাকতে হবে। আপনার ব্লগে ২০ টি পোস্ট থাকলে সেই পোস্টগুলো আপনার ফেসবুক পেজে শেয়ার করবেন। শেয়ার করার পর আপনি Instant Articles এর টুলস হতে আপনার ব্লগের Instant Articles অনুমোদন করার জন্য ফেসবুকের কাছে আবেদন করতে হবে। ফেসবুক ৫/৭ দিনের মধ্যে আপনার আবেদন রিভিউ করে যোগ্য মনে করলে আপনার পেজের জন্য Instant Articles অনুমোদন দেবে।

 

কেবলমাত্র ফেসবুক Instant Articles অনুমোদন হলে আপনার ব্লগের পোস্টের ভীতরে ফেসবুকের বিজ্ঞাপন ব্যবহার করতে পারবেন। বিজ্ঞাপন ব্যবহার করার ক্ষেত্রে গুগল এডসেন্স এর মত আপনার ব্লগের বিভিন্ন জায়গাতে বিজ্ঞাপনের কোড বসাতে হবে না। ফেসবুক আপনার ব্লগ পোস্টের বিভিন্ন জায়গাতে অটোমেটিক বিজ্ঞাপন শো করবে।

 

তবে এ ক্ষেত্রে আপনার ব্লগে গুগল এডসেন্স বিজ্ঞাপন থাকলে সেটি শো হবে না। অধিকন্তু ফেসবুক Instant Articles শুধুমাত্র মোবাইলের ফেসবুক এ্যাপ এর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। ফেসবুক এর ওয়েব ভার্সনে Instant Articles সাপোর্ট করে না। এ বিষয়ে আরো বিস্তারিত জানার জন্য উপরের লিংক হতে আমাদের ব্লগের ফেসবুক Instant Articles সম্পর্কিত পোস্টটি পড়ে নিবেন।

 

১০। ফেসবুক একাউন্ট খুলে আয়

প্রথমে বলে রাখছি ফেসবুক একাউন্ট থেকে অর্থাৎ আপানার আমার যে নরমাল ফেসবুক একাউন্ট আছে, যেটি আমরা নিয়মিত ব্যবহার করি, সেই একাউন্টের মাধ্যমে আমরা সরাসরি ফেসবুক থেকে টাকা আয় করতে পারব না। কারণ ফেসবুক একটি ইউজার একাউন্ট থেকে সরাসরি টাকা ইনকাম করার কোন উপায় রাখেনি।

 

এগুলো পড়তে পারেন—

ফ্রিল্যান্সিং কি? ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার গাইডলাইন!

ফেসবুকের পাসওয়ার্ড ভুলে গেলে কি করতে হয়?

এক দিনের জন্য Facebook বন্ধ হলে কি কি ঘটতে পারে?

Android Apps দিয়ে টাকা আয় 2022

টাকা ইনকাম করার অ্যাপ

আমরা জানি যে, একটি ফেসবুক একাউন্টে ৫০০০ হাজার এর বেশি ফ্রেন্ড যুক্ত করা যায় না। সেই জন্য মূলত ফেসবুক প্রোফাইল হতে কোন ধরনের মনিটাইজ করার সুযোগ দেয়নি। তবে আপনার কোন ধরনের ব্যক্তিগত ব্লগ থাকলে সেই ব্লগের পোস্টগুলো ফেসবুক একাউন্টে শেয়ার করে ফেসবুক হতে আপনার ব্লগের ভিজিটর বৃদ্ধি করে ব্লগের আয় বাড়িয়ে নিতে পারবেন।

 

 

 

তবে অধিকাংশ লোক তার ব্যক্তিগত ফেসবুক একাউন্ট দিয়ে এ ধরনের কাজ করে না। ফেসবুক থেকে টাকা আয় করার জন্য অবশ্যই আপনার একটি ফেসবুক পেজ বা ফেসবুক ফ্যান পেজ থাকতে হবে। কেবল মাত্র পেজ ব্যবহার করে ফেসবুক থেকে টাকা আয় করতে পারবেন।

ফেসবুক ফ্যান পেজ তৈরি করা

ফেসবুক এর অসাধারন সব ফিচার্স এর মধ্যে অন্যতম হল ফেসবুক ফ্যান পেজ বা লাইক পেজ। ফেসবুক প্রোফাইলে যেভাবে বন্ধু বাড়ানোর জন্য ফ্রেন্ড রিকুয়েস্ট পাঠাতে হয় বা ফ্রেন্ড রিকুয়েস্ট রিসিভ করতে হয়, ফেসবুক ফ্যান প্যাজ এর ক্ষেত্রে তেমনটি করতে হয় না।

 

আপনার নিজের নামে একটি ফেসবুক লাইক পেজ থাকলে, যে কেউ আপনার পেজে লাইক করতে পারবে। আপনার একটি ফেসবুক পেজ থাকলে এবং সেটিতে প্রচুর পরিমানে ফলোয়ার বা লাইক থাকলে আপনার ফেসবুক পেজকে কাজে লাগিয়ে বিভিন্ন উপায়ে ফেসবুক হতে সহজে টাকা আয় করতে পারবেন।

কিভাবে ফেসবুক পেজ খুলবেন?

আপনার যদি একটি ফেসবুক পেজ থাকে এবং সেটি প্রচুর পরিমানে লাইক থাকে, তাহলে আপনান নতুন ফেসবুক পেজ তৈরি করার কোন প্রয়োজন নেই। তবে আপনার ফেসবুক পেজ না থাকলে ফেসবুক থেকে আয় শুরু করার পূর্বে প্রথমে আপনার নিজ নামে অথবা আপনার কোম্পানি কিংবা আপনার ব্লগের নামে একটি ফেসবুক পেজ তৈরি করে নিতে হবে। 

 

আপনি যদি ফেসবুক পেজ তৈরি করতে না জানেন, তাহলেও কোন সমস্যা নেই, কারণ আমাদের ব্লগে এ বিষয়ে একটি পোস্ট রয়েছে। আমাদের ব্লগের পোস্টটি পড়লে আপনি খুব সহজে একটি ফেসবুক পেজ তৈরি করে নিতে পারবেন।

 

ফেসবুক পেজ তৈরি করার পর বসে থাকলে ফেসবুক থেকে টাকা আয় করতে পারবেন না। ফেসবুক থেকে টাকা আয় করার জন্য আপনাকে প্রতিদিন কিছু সময় ব্যয় করতে হবে। কারণ যেকোন উপায়ে টাকা ইনকাম করার জন্য পরিশ্রম ব্যাতীত টাকা আয় করা সম্ভব হয় না।

 

ঠিক একইভাবে ফেসবুক থেকে টাকা আয় করার জন্য প্রথমে আপনার ফেসবুক পেজের লাইক বাড়িয়ে নিতে হবে। ফেসবুক থেকে আয় শুরু করার পূর্বে ফেসবুক পেজের লাইক বৃদ্ধি করে নেওয়া হবে আপনার প্রধান কাজ। ফেসবুকে যেকোন কাজের মাধ্যমে যখন আপনি ফেসবুক পেজের লাইক বাড়িয়ে নিবেন, তখন ফেসবুক থেকে আয়ের পথ আপনার জন্য অনেক সহজ হবে।

 

যখন আপনার ফেসবুক পেজে প্রচুর পরিমানে ফ্যান ফলোয়ার থাকবে তখন ফেসবুক থেকে আয় করার নতুন নতুন উপায় আপনি নিজেই খোজে নিতে পারবেন এবং আয়ের বিভিন্ন উৎস আপনাকে হাতছানি দিয়ে ডাকবে। সুতরাং ফেসবুক পেজের লাইক বৃদ্ধি করাই হবে আপনার প্রথম ও প্রধান কাজ।

 

আর আপনি অবশ্যই জানেন ফেসবুক পেজের লাইক বাড়ানোর কাজটি অমনি অমনি হয়ে যায় না। ফেসবুক পেজের লাইক বাড়ানোর জন্য আপনাকে এমন কিছু করতে হবে যাতে লোকজন আপনার কাজকে পছন্দ করে। তবেই অন্যান্য ফেসবুক ইউজাররা আপনার পেজটি লাইক করতে শুরু করবে। শুরুর দিকে কাজটি আপনার কাছে কঠিন মনে হলেও নিয়মিত কাজ করলে ধিরে ধিরে আপনার ফেসবুক পেজের লাইক অবশ্যই বাড়তে থাকবে।

কিভাবে ফেসবুক পেজের লাইক বাড়াবেন?

আপনার ফেসবুক পেজের লাইক ও ফলোয়ার বাড়ানোর জন্য নিচে আমরা কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ উপায় শেয়ার করছি। এ কাজগুলো করলে আপনি সহজে আপনার ফেসবুক পেজের লাইক বাড়িয়ে নিতে পারবেন।

স্টেপ-১ঃ টপিক নির্ধারণ (Find Your Niche)

এখানে টপিক বলতে আপনি যে বিষয় নিয়ে ফেসবুকে কাজ করবেন সেটাকে বুঝানো হচ্ছে। টপিক বাছাই করার ক্ষেত্রে আমি বলব আপনি যে বিষয়ে ভালো জানে ও বুঝেন অবশ্যই সেই বিষয়ে ফেসবুক পেজে লেখালেখি করুন। ফেসবুক পেজে লেখালেখি করাটা বর্তমানে এক ধরনের ফ্যাশনে পরিনত হয়েছে।

 

আপনি হয়ত দেখে থাকেন যে, যারা ফেসবুকে লেখালিখি করে ফেসবুকে তাদের প্রচুর ফ্যান ফলোয়ার থাকে এবং তারা ফেসবুকে অনেক জনপ্রিয় হয়। কাজেই আপনি যে বিষয়ে পারদর্শি সেই বিষয়ে ফেসবুকে লিখালেখি করে আপনার ফেসবুক পেজের ফ্যান ফলোয়ার ও লাইক বৃদ্ধি করে নিতে পারেন।

 

যেমন: গল্প, কবিতা, উপন্যাস, টেকনোলজি, ফ্যাশন, লাইফস্টাইল ইত্যাদি বিষয়ে লেখালেখি করলে সহজে জনপ্রিয়তা পাওয়া যায়। তাছাড়া আপনি একজন গৃহিনী হয়ে থাকলে বিভিন্ন রিসিপি তৈরি, ফ্যাশন ও ডিজাইন বিষয়ে লেখালেখি করে কিংবা ভিডিও তৈরি করে ফেসবুক পেজের লাইক বৃদ্ধি করে নিতে পারেন।

স্টেপ-২ঃ পেজে নিয়মিত আর্টেল পাবলিশ করা

আপনি যদি শুধুমাত্র শখের বশে মাঝে মধ্যে আর্টিকেল শেয়ার করেন, তাহলে আপনি অল্পদিনে ফ্যান ফলোয়ার বৃদ্ধি করতে পারবেন না। কারণ যারা আপনার পাঠক হবে তারা অবশ্যই আপনাকে নিয়মিত দেখতে চাইবে। এ ক্ষেত্রে আপনি মাঝে মধ্যে পোস্ট করলে সেই পোস্টগুলো পাঠক এড়িয়ে চলবে। সে জন্য দ্রুত ফেসবুক পেজের লাইক বৃদ্ধি করার জন্য নিয়মিত পোস্ট করে যেতে হবে।

স্টেপ-৩ঃ ভালো সম্পর্ক গড়ে তোলা

যারা আপনার ফ্যান ফলোয়ার ও শুভাকাঙ্খি হবে তাদের সাথে ফেসবুকে নিয়মিত যোগাযোগ বজায় রাখুন। তারা আপনার পোস্টে কোন ধরনের কমেন্ট করলে সেটির জবাব দেন। কমেন্টে কোন কিছু লেখার না থাকলেও ধন্যবাদ কিংবা ওয়েলকাম জানাবেন।

 

তাছাড়া যারা আপনাকে পার্সন্যালি ফেসবুকে ম্যাসেজ করবে তাদের সাথে ভাব না দেখিয়ে মিনিমাম হাই-হ্যালো সম্পর্ক বজায় রাখার জন্য ম্যাসেজের উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করবেন। এতেকরে আপনি ফেসবুকে আরো অল্পদিনে জনপ্রিয় হয়ে উঠতে পারবেন।

স্টেপ-৪ঃ বিভিন্ন ফেসবুক গ্রুপে জয়েন করুন

অনলাইনে হাজারো ফেসবুক গ্রুপ রয়েছে যেগুলোর অনেক জনপ্রিয়তা আছে, আপনি সেগুলোতে জয়েন করুন। মাঝে মধ্যে আপনার দু-একটি পোস্ট সরাসরি ঐ সমস্ত ফেসবুক গ্রুপে পোস্ট করুন এবং লেখার শেষে আপনার ফেসবুক পেজটির লিংক শেয়ার করে সেটিতে লাইক করার জন্য অনুরোধ করুন। আপনার লেখা পড়ে ভালো লাগলে লোকজন আপনার ফেসবুক পেজ অবশ্যই লাইক করবে।

 

 

 

আমাদের শেষ কথা,

তাহলে, ফেসবুকে কিভাবে টাকা আয় করা যায়, এই প্রশ্নোর উত্তরে আমি আপনাদের ৫ টি উপায় বললাম। আপনারা প্রথমে নিজের সুবিধা মতে যেকোনো মাধ্যম ব্যবহার করতে পারেন।

 

এছাড়া, যদি আপনারা ফেসবুক পেজ থেকে টাকা ইনকাম করার উপায় খুঁজছেন, তাহলেও আমি এমন কিছু টাকা ইনকাম করার উপায় বলেসি যেগুলো একটি ফেসবুক পেজ এর মাধ্যমে সম্ভব।

 

এবং আস্তে আস্তে সম উপায় গুলো ব্যবহার করেই আয় করা শুরু করতে পারেন।

 

শেষে, ফেসবুক থেকে টাকা আয় করার উপায় গুলো নিয়ে লিখা আমাদের আজকের এই আর্টিকেল আপনাদের ভালো লেগে থাকে, তাহলে নিচে কমেন্ট করে আমাদের জানান এবং শেয়ার করতে ভুলবেননা কিন্তু।

Enjoyed this article? Stay informed by joining our newsletter!

Comments

You must be logged in to post a comment.

Related Articles